' ভাষা মানুষের মুখ থেকে কলমের মুখে আসে, উল্টোটা করতে গেলে মুখে শুধু কালি পড়ে,' বলেছেন----

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

কাজী নজরুল ইসলাম

বলাইচাঁদ মুখোপাধ্যায়

প্রমথ চৌধুরী

Description (বিবরণ) :

প্রশ্ন: ' ভাষা মানুষের মুখ থেকে কলমের মুখে আসে, উল্টোটা করতে গেলে মুখে শুধু কালি পড়ে,' বলেছেন----

ব্যাখ্যা: বাংলা সাহিত্যের বিশিষ্ট সাহিত্যিক প্রমথ চৌধুরী (১৮৬৮-১৯৪৬ খ্রি) কর্তৃক আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ পঙক্তি হলো 'সুশিক্ষিত লোক মাত্রই স্বশিক্ষিত।'


Related Question

' অক্ষির সমীপে' --এর সংক্ষেপণ হলো -----

সমক্ষ

পরোক্ষ

প্রত্যক্ষ

নিরপেক্ষ

Description (বিবরণ) : 'অক্ষির সমীপে' - এর সংক্ষেপণ হলো সমক্ষ। অন্যদিকে, 'অক্ষির সম্মুখে' হলো প্রত্যক্ষ, 'অক্ষির আগোচরে' হলো পরোক্ষ এবং 'পক্ষপাতহীন বা মুখাপেক্ষী নয় এমন' হলো নিরপেক্ষ।

উপসর্গের সঙ্গে প্রত্যয়ের পার্থক্য ----

অব্যয় ও শব্দাংশ

নতুন শব্দ গঠনে

উপসর্গ থাকে সামনে, প্রত্যয় থাকে পিছনে

ভিন্ন অর্থ প্রকাশে

Description (বিবরণ) : যেসব অব্যয় শব্দ বা ধাতুর পূর্বে বসে মূল শব্দের অর্থের পরিবর্তন ঘটায় ও নতুন শব্দ গঠন করে তাকে উপসর্গ । অন্যদিকে যেসব বর্ণ বা বর্ণসমষ্টি ধাতু বা শব্দের পরে বসে নতুন শব্দ গঠন করে তাকে প্রত্যয় বলে। যেমন - কাঁদ্ + অন = কাঁদন এখানে 'অন' প্রত্যয়'। সুতরাং উপরিউক্ত প্রশ্নে (গ) -ই যথার্থ উত্তর।

' তুমি এতক্ষণ কী করেছ?' ---এই বাক্যে 'কী' কোন পদ?

বিশেষণ

অব্যয়

সর্বনাম

ক্রিয়া

Description (বিবরণ) : বিশেষণ হলো যা বিশেষ্য ও সর্বনাম পদের দোষ, গুণ ইত্যাদি প্রকাশ করে। যেমন- ভালো , ছোট, বড়, পাঁচটি ইত্যাদি। অব্যয় হলো যে পদের কোনো পরিবর্তন নেই। যেমন - এবং, কিংবা ,কিন্তু অথবা ইত্যাদি। সর্বনাম হলো যা বিশেষ্যের পরিবর্তে বসে। যেমন - আমি , তুমি, সে, তাকে আমার ইত্যাদি। ক্রিয়া হলো যে পদ দ্বারা কার্য সম্পন্ন হয় । যেমন - করা, খাওয়া, যাওয়া ইত্যাদি। সুতরাং উপরিউক্ত বাক্যে 'তুমি' ও 'কী' উভয়ই সর্বনাম।

' আকাশে তো আমি রাখিনাই মোর উড়িবার ইতিহাস।' ----এই বাক্যে ' আকাশে' শব্দটি কোন কারকে কোন বিভক্তির উদাহরণ?

কর্তৃকারকে সপ্তমী

কর্মকারকে সপ্তমী

অপাদান কারকে তৃতীয়া

অধিকরণ কারকে সপ্তমী

Description (বিবরণ) : যে স্থানে বা যে কালে ক্রিয়া অনুষ্ঠিত হয় তাকে অধিকরণ কারক বলে। যেমন - নদীতে পানি আছে। সুতরাং উপরিউক্ত বাক্যে 'আকাশে' শব্দটি অধিকরণ কারক এবং এখানে 'এ' বিভক্তি থাকায় এটি সপ্তমী বিভক্তি।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য কতজনকে বীর উত্তম উপাধিতে ভূষিত করা হয়?

২৫৭ জন

১৬৩ জন

৪৪ জন

৬৮ জন

Description (বিবরণ) : মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য ৪ টি রাষ্ট্রীয় খেতাব প্রদান করা হয় ৬৭৬ জনকে। তার মধ্যে বীরশ্রেষ্ঠ ৭ জন, বীর উত্তম ৬৮ জন ,বীর বিক্রম ১৭৫ জন, বীর প্রতীক ৪২৬ জন।

জিয়া সার কারখানার উৎপাদিত সারের নাম কি?

অ্যামোনিয়া

টিএসপি

ইউরিয়া

সুপার ফসফেট

Description (বিবরণ) : জিয়া সার কারখানা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আগুগঞ্জে অবস্থিত। এ সার কারখানায় ইউরিয়া সার উৎপাদিত হয়, তা হলো - চট্রগ্রাম , ফেঞ্চুগঞ্জ, ঘোড়াশাল, পলাশ , যমুনা, কর্ণফুলী ও শাহজালাল সার কারখানা। উল্লেখ্য, বাংলাদেশের সবেচেয়ে বড় যমুনা সার কারখানা জামালপুরের তারাকান্দিতে অবস্থিত।

বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার ডিজাইনার কে?

জয়নুল আবেদিন

কামরুল হাসান

হামিদুর রহমান

হাশেম খান

Description (বিবরণ) : মানচিত্রখঁচিত প্রথম জাতীয় পতাকার নকশা তৈরি করেন শিবনারায়ণ দাশ । পরবর্তীতে ১৯৭২ সালে বর্তমান জাতীয় পতাকার (মানচিত্রবিহীন) ডিজাইন করেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত চিত্রশিল্পী কামরুল হাসান(১৯২১-১৯৮৮খ্রি)।

কোন উৎস থেকে বাংলাদেশ সরকারের সর্বোচ্চ রাজস্ব আয় হয়?

আয়কর

আমদানি ও রপ্তানি শুল্ক

ভূমি রাজস্ব

মূল্য সংযোজন কর

Description (বিবরণ) : বাংলাদেশ সরকারের সর্বোচ্চ রাজস্ব আয় হয় মূল্য সংযোজন কর (VAT) থেকে। অর্থনৈতিক সমীক্ষা ২০১৬ -এর তথ্য মতে, ফেব্রুয়ারি ২০১৬ পর্যন্ত মূল্য সংযোজন করের মাধ্যমে মোট রাজস্ব ৩৭.৭৭% ,আয়কর থেকে ২৯.৮৬%, সম্পূরক শুল্ক থেকে ১৮.০১% , আমদানি শুল্ক থেকে ১২.২৭% এবং অন্যান্য কর ও শুষ্ক থেকে ২.০৯% আদায় হয়।

বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপের নাম কি?

সেন্টমার্টিন

মহেশখালী

হাতিয়া

সন্দ্বীপ

Description (বিবরণ) : কক্সবাজার জেলায় টেকনাফের সমুদ্র উপকূল থেকে ৪৮ কিমি দক্ষিণে সেন্টমার্টিন দ্বীপ অবস্থিত। এর আয়তন প্রায় ৮ বর্গকিমি। এটি পর্যটন কেন্দ্র, মৎস্য আহরণ, খনিজ পদার্থ ও চুনাপাথরের জন্য বিখ্যাত।

' সকল নাগরিক আইনের দৃষ্টিতে সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভের অধিকারী' ----সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদে বর্ণিত আছে?

২৭

২৮

৩০

৪৭

Description (বিবরণ) : এটি বাংলাদেশ সংবিধানের তৃতীয় ভাগ মৌলিক অধিকার-এর 'আইনের দৃষ্টিতে সমতা' অংশে ২৭ অনুচ্ছেদে বর্ণিত আছে। অন্যদিকে ২৮ নং অনুচ্ছেদে ধর্ম- বর্ণ ইত্যাদি বিষয়ে বৈষম্য , ৩০ নং অনুচ্ছেদে বিদেশী খেতাব ইত্যাদি গ্রহণ, নিষিদ্ধকরণ এবং ৪৭ নং অনুচ্ছেদে কতিপয় আইনের হেফাজত বিষয়ে আইন বর্ণিত হয়েছে।