বাংলা সাহিত্যের প্রথম ইতিহাস গ্রন্থ কোনটি?

বাঙ্গালা সাহিত্যের ইতিহাস

বঙ্গভাষা ও সাহিত্য

বাংলা সাহিত্যের কথা

বাংলা সাহিত্যের রূপরেখা

Description (বিবরণ) : দীনেশচন্দ্র সেনগুপ্তের 'বঙ্গভাষা ও সাহিত্য' বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস বিষয়ক প্রথম প্রবন্ধগ্রন্থ। ১৮৯৬ সালে এটি প্রকাশিত হয়।

Related Question

কত খ্রিস্টাব্দে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ' জগত্তারিণী' পদক লাভ করেন?

১৯১৬

১৯২৩

১৯৩৩

১৯০৩

Description (বিবরণ) : অপরাজেয় কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্রোপাধ্যায় তার সামগ্রিক সাহিত্যকর্মের জন্য কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯২৩ সালে ' জগত্তারিণী ' স্বর্ণপদক এবং ১৯৩৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে 'ডি লিট' উপাধি লাভ করেন।

রাজা রামমোহন রচিত বাংলা ব্যাকরণের নাম কি?

Description (বিবরণ) : রাজা রামমোহন রায় প্রথম বাঙালি হিসেবে ' গৌড়ীয় ব্যাকরণ' (১৮৩৩) রচনা করেন। তার অন্যান্য রচনা হচ্ছে 'বেদান্তসার' (১৮১৫) , 'ভট্রাচার্যের সহিত বিচার' (১৮১৭) , 'সহমরণ বিষয়ক প্রবর্তক ও নিবর্তকের সম্বাদ' (১৮১৮) ইত্যাদি।

' মেছো' শব্দের প্রকৃতি-প্রত্যয় কি?

মাছ + ও

মেছ + ও

মাছি + উয়া> ও

মাছ + উয়া> ও

কোন সন্ধিটি নিপাতনে সিদ্ধ?

বাক্‌ + দান = বাগদান

উৎ + ছেদ = উচ্ছেদ

পর + পর = পরস্পর

সম + সার = সংসার

Description (বিবরণ) : কোনো নিয়ম অনুসরণ না করে যখন সন্ধি সাধিত হয় তখন তাকে নিপাতনে সিদ্ধ বলে। উপরিউক্ত সন্ধিগুলোর মধ্যে 'পর + পর= পরস্পর 'ছাড়া অন্য সন্ধিগুলো ব্যাকরণের সুনির্দিষ্ট নিয়ম মেনে সম্পন্ন হয়েছে।

বাংলা মৌলিক নাটকের যাত্রা শুরু হয় কোন নাট্যকারের হাতে?

মধুসূদন দত্ত

দীনবন্ধু মিত্র

জ্যোতিন্দ্রনাথ ঠাকুর

রামনারায়ণ তর্করত্ন

Description (বিবরণ) : উনিশ শতকের গোড়ার দিকে সংস্কৃত নাটকের অনুবাদ শুরু হলেও তারাচরণ শিকদারের 'ভদ্রার্জুন' (১৮৫২) ও রামনারায়ণ তর্করত্নের 'কুলীনকুল সর্বস্ব' (১৮৫৪) নাটক থেকে প্রকৃত পক্ষে বাংলা মৌলিক নাট্যসাহিত্যের সূত্রপাত হয়।

প্রত্যক্ষ কোনো বস্তুর সাথে পরোক্ষ কোনো বস্তুর তুলনা করলে প্রত্যক্ষ বস্তুটিকে বলা হয়-----।

উপমিত

উপমান

উপমেয়

রূপক

Description (বিবরণ) : 'উপমান' শব্দের অর্থ 'তুলনীয় বস্তু'। অর্থাৎ প্রত্যক্ষ কোনো বস্তুর সাথে অন্য কোনো পরোক্ষ বস্তুর তুলনা করা হলে ঐ প্রত্যক্ষ বস্তুটিকে 'উপমেয়' বলা হয়। পক্ষান্তরে , যার সাথে উপমা দেয়া হয় বা তুলনা করা হয় তাকে 'উপমান' বেল। যেমন - 'পদ্মআঁখি' শব্দটিতে পদ্মের সাথে আখিঁর উপমা দেয়া হয়েছে। সুতরাং 'পদ্ম' উপমান এবং আঁখি' উপমেয়। 'উপমান' ও 'উপমেয়' পদের সমাস হলে যদি উপমেয়ের অর্থ প্রধান রুপে প্রতীয়মান হয় তাকে উপমিত সমাস হলে। যেমন - পুরুষ সিংহের ন্যায়= পুরুষসিংহ এবং যে স্থলে উপমান ও উপমেয় সমাস হয়েছে এবং উভয়ের মধ্যে অভেদ কল্পনা করা হয়েছে তাকে রুপক সমাস বলে। যেমন- ফুল রুপ কুমারী = ফুলকুমারী।