কোনটি শুদ্ধ?

সৌজন্যতা

সৌজন্নতা

সৌজন্য

সৌজন্ন

সুজন্যতা

Description (বিবরণ) :

প্রশ্ন: কোনটি শুদ্ধ?

ব্যাখ্যা: যে সমাসে বিশেষণ বা বিশেষণভাবাপন্ন পদের সাথে বিশেষ্য বা বিশেষ্যভাবাপন্ন পদের সমাস হয় এবং পরপদের অর্থই প্রধানরূপে প্রতীয়মান হয়, তাকে কর্মধারয় সমাস বলে। যেমন: নীল যে পদ্ম= নীলপদ্ম, হারিয়েছে যে মনি= হারামনি।


Related Question

'তোমাকে পাওয়ার জন্য হে স্বাধীনতা' --কার রচনা?

রঙ্গলাল বন্দ্যোপাধ্যায়

শামসুর রাহমান

মুনীর চৌধুরী

কাজী নজরুল ইসলাম

মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান

Description (বিবরণ) : ক্রিয়া সম্পাদনের কাল এবং আধারকে (সময় এবং স্থানকে) অধিকরণ কারক বলে। ক্রিয়াকে ‘কোথায়/ কখন/ কী বিষয়ে’ দিয়ে প্রশ্ন করলে যে উত্তর পাওয়া যায়, তাই অধিকরণ কারক। পড়াশোনায় মন দাও। কী বিষয়ে মন দাও? পড়াশোনায়- অধিকরণে সপ্তমী।

উদারের বিপরীত শব্দ হলো ---

সাবলীল

সংকীর্ণ

মহান

অসৎ

নিকৃষ্ট

এক কথায় প্রকাশ করুন ---যে নারী প্রিয় কথা বলে :

সুহাসিনী

প্রিয়া

প্রিয়ংবদা

প্রিয়ভাষিণী

শ্রীমতি

Description (বিবরণ) : 'জন্ডিস' সেলিম আল দ্বীন রচিত একটি নাটক।

অম্বর শব্দের অর্থ হলো ----

আকাশ

মেঘ

হাতী

বজ্রধনী

বাতাস

Description (বিবরণ) : ১৯৫২ সালের পটভূমিতে রচিত কবর নাটকটির রচয়িতা মুনীর চৌধুরী।

'আপনি যাকে ঘৃণা করছেন সে গরীব বটে, কিন্তু লোভী নয়' এটা কোন জাতীয় বাক্য :

যৌগিক বাক্য

মৌলিক বাক্য

জটিল বাক্য

সরল বাক্য

অশুদ্ধ বাক্য

Description (বিবরণ) : ছায়া হরিণ (১৯৬২) কাব্যটি আহসান হাবীব রচিত দ্বিতীয় কাব্য।

"কর্মে যার ক্লান্তি নাই" এর সংক্ষিপ্ত রূপ কি হবে?

অক্লান্ত

অবিশ্রাম

ক্লান্তিহীন

অক্লান্ত কর্মী

ক্লান্তিবিহীন

Description (বিবরণ) : হাজার বছর ধরে প্রখ্যাত বাংলাদেশী ঔপন্যাসিক ও চলচ্চিত্রকার জহির রায়হান রচিত একটি কালজয়ী সামাজিক উপন্যাস। ১৯৬৪ সালে এ উপন্যাসটির জন্য তিনি আদমজী পুরষ্কারে সম্মানিত হন। কোহিনুর আক্তার সুচন্দা ২০০৫ সালে এই উপন্যাস অবলম্বনে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন।

"যা পূর্বে ছিল এখন নেই" এক কথায় কি বলা হয়?

অপূর্ব

অদৃষ্টপূর্ব

অভূতপূর্ব

ভূতপূর্ব

ঐতিহাসিক

Description (বিবরণ) : ত্রিভূজের যেকোনো দুই বাহুর মধ্যবিন্দুর সংযোজক রেখাংশ তৃতীয় বাহুর সমান্তরাল এবং দৈর্ঘ্যে তার অর্ধেক।

ন্যায় শাস্ত্রে পারদর্শীকে এক কথায় কি বলা হয়?

নীতিবান

ন্যায়পরায়ণ

নীতিবাগীশ

সজ্জন

নৈয়ায়িক

বাংলা সাহিত্যের প্রথম উপন্যাস ---

বঙ্কিমচন্দ্র বিষবৃক্ষ

পেরিচাঁদ মিত্রের আলালের ঘরের দুলাল

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের চোখের বালি

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পদ্মা নদীর মাঝি

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের ভ্রান্তি বিলাস

বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রথম প্রধান উপদেষ্টা কে ছিলেন?

ইয়াজউদ্দিন আহমেদ

লতিফুর রহমান

মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান

সাহাবুদ্দিন আহাম্মেদ

Description (বিবরণ) :

প্রবল গণঅভ্যুত্থানের মুখে ক্ষমতাসীন জেনারেল এরশাদ সরকার ১৯৯০ সালের ৪ ডিসেম্বর তৎকালীন বিরোধী দল ও জোটসমূহের প্রস্তাবিত নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের জন্য ঘোষিত রূপরেখা গ্রহণ করার ঘোষণা দেন। ৬ ডিসেম্বর ১৯৯০ এরশাদ সরকার পদত্যাদ করলে বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদের নেতৃত্বে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে ব্যপকভাবে গ্রহণযোগ্য বাংলাদেশের পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে প্রথম সাংবিধানিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান ছিলেন বিচারপতি হাবিবুর রহমান, ২০০১ সালের নির্বাচনে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান ছিলেন বিচারপতি হাবিবুর রহমান, ২০০১ সালের নির্বাচনে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান ছিলেন বিচারপতি লতিফুর রহমান, ২০০৬ সালে সর্বশেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রথম প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন ইয়াজউদ্দীন আহম্মেদ এবং পরে ফখরুদ্দীন আহমদ। ৩০ জুন ২০১১ সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা বাতিল করা হয়।