বাংলা ব্যঞ্জনবর্ণ কতটি বর্গে ভাগ করা হয়েছে?

তিন

চার

পাঁচ

ছয়

Description (বিবরণ) :

প্রশ্ন: বাংলা ব্যঞ্জনবর্ণ কতটি বর্গে ভাগ করা হয়েছে?

ব্যাখ্যা:

উচ্চারণ স্থান অনুসারে বাংলা ভাষার ব্যঞ্জনবর্ণগুলোকে ৫টি শ্রেণীতে ভাগ করা হয়েছে । যথা: ক. কণ্ঠ বা জিহবামূলীয়: খ. তালব্য বা অগ্রতালুজাত; গ  ‍মূর্ধন্য বা পশ্চাৎ দন্ডমূলীয়; ঘ. দত্ত বা অগ্রদন্তমূলীয়; ঙ, ওষ্ঠ্য বর্ণ ।


Related Question

নিচের কোনট তৎসম শব্দ নয়?

হারাম

চন্দ্র

নক্ষত্র

সূর্য

Description (বিবরণ) :

যেসব শষ সংস্কৃত ভাষা থেকে কোনোরূপ পরিবর্তন ছাড়াই সরাসারি বাংলা ভাষায় গৃহীত হয়েছে সেসব শব্দকে বলা হয় তৎসম শব্দ। এখানে চন্দ্র, সূর্য, নক্ষত্র প্রতেকে তৎসম শব্দ । অন্যাদিকে ‘হারামৎ আরবি শব্দ ।

”মনীষা” শব্দের সঠিক সন্ধি বিচ্ছেদ কোনটি?

মন+ইষা

মনস+ঈষা

মন+ঈষা

মনস+ইষা

Description (বিবরণ) :

কিছু সন্ধি আছে যাদেরকে কোনো নিয়মে ফেলা যায় না। সেসব সন্ধিকে বলা হয় নিপাতনে সিন্ধ সন্ধি। ‘মনীষা’ নিপাতনে সিন্ধ সন্ধি। এর সঠিক সন্ধি বিচ্ছেদ ‘মনস+ঈষা’। এরূপ আরও কিছু নিপাতনে সিদ্ধ সন্ধি হলো: কুলটা + কুল + অটা, গবাক্ষ = গো + অক্ষ, সীমান্ত = সীমা +- অন্ত।

বাংলা ভাষায় তৎসম উপসর্গ কতটি?

আঠার

উনিশ

বিশ

একুশ

Description (বিবরণ) :

যেসব উপসর্গ সংস্কৃত ভাষা থেকে বাংলা ভাষায় এসেছে সেসব উপসর্গকে বলা হয় তৎসম বা সংস্কৃত অপ, সম্, নি, অনু, অব, নির, দূর, বি, অধি, সু, উৎ পরি, প্রতি, অভি, অতি, অপি, উপ, আ।

সঠিক বাক্য সংকোচন “বাচাল” এর পুরো বাক্য কোনটি?

যেখানে বেশি বলা হয়েছে

যে বেশি কথা বলে

বেশি গল্প বলে

যেখানে বেশি লোক আছেন

Description (বিবরণ) :

একাধিক পদ বা উপবাক্যকে একটি শব্দে প্রকাশ করা হলে, তাকে বাক্য সংকোচন বা এক কথায় প্রকাশ বলে। বাক্য  তথা ভাষাকে সুন্দর, সাবলীল ও ভাষার অর্থ প্রকাশের দীগুকে সমুজ্জ্বল করার জন্য বাক্য সংকোচন অতীব গুরুত্বপূর্ণ।

”নবান্ন” শব্দটি কোন প্রক্রিয়ায় গঠিত হয়েছে?

সন্ধি

প্রত্যয়

উপসর্গ

সমাস

Description (বিবরণ) :

নবান্ন (নতুন ধানের অন্ন) শব্দটিতে সমস্যমান পদের অর্থকে না বুঝিয়ে একটি উৎসবকে বোঝালো হয়েছে। সুতরাং এটি একটি বহুবীহি সমাস। আবার পৃর্বপদে বিশেষণ ও পরপদে বিশেষ্য থাকায় এটি সমানাধিকরণ বহুরবীহি।

সমাস ভাষাকে কি করে?

সংক্ষেপ করে

বিস্ত্রত করেন

অর্থপূর্ণ করে

অর্থের রূপান্তর ঘটায়

Description (বিবরণ) :

সমাস কথাটির অর্থ হচ্ছে সংক্ষেপ, মিলন, একাধিক পদের একপদীকরণ। পরস্পর অর্থসঙ্গতি সম্পন্ন দুই বা ততোধিক পদের এক পদে পরিণত হওয়াকে সমাস বলে।সমাস নতুন শব্দ গঠনের একটি বিশিষ্ট উপায়। সমাসের সাহায্যে দুই বা ততোধিক পদের মিলনের ফলে একটি নতুন শব্দ বা পদ তৈরি হয় এবং যে পদগুলোর মিলনে সমাস হয় তাদের পরস্পরের মধ্যে অন্বয় বা সম্পর্ক থাকে। সুতরাং পরস্পর সম্পর্কযুক্ত দুই বা ততোধিক পদকে একপদে পরিণত করার নাম সমাস ।

কোন বানানটি শুদ্ধ?

Achivement

Acheivment

Achievement

Acheivement

Description (বিবরণ) : শুদ্ধ বানান Achievement , যার অর্থ কৃতিত্ব।

বিভা : কিরণ : : সুবলিত : ?

সুবিদিত

সুগঠিত

সুবিনীত

বিধিত

Description (বিবরণ) : বিভা এর সমার্থক শব্দ কিরণ। সুবলিত " " " সুগঠিত।

বাংলা সাহিত্যে কথ্য রীতির প্রচলনে কোন পত্রিকার অবদান বেশি?

কল্লোল

সবুজপত্র

বঙ্গদর্শন

কালিকলম

Description (বিবরণ) :

প্রমথ চৌধুরীর সম্পাদনায় ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দে ‘সবুজপর’ পরিকাটি প্রকাশিত হয় । বাংলা গদ্যরীতির বিকাশে এ পত্রিকার গুরুত্ব অপরিসীম । কেননা এর মাধ্যমে সাধু গদ্যরীতির পরিবর্তে চলিত গদ্যরীতির ব্যবহার প্রতিষ্ঠিত হয়।

কোনটি রাষ্ট্রের চরম ও চূড়ান্ত ক্ষমতা?

জনসমষ্টি

নির্দিষ্ট ভূখন্ড

সরকার

সার্বভৌমত্ব